শুক্রবার - ডিসেম্বর ১ - ২০২৩

টরন্টোতে ৬৫ হাজার সাশ্রয়ী বাড়ি নির্মাণের চাহিদা

টরন্টোর মেয়র অলিভিয়া চাউ বলেন আমরা ভয়াবহ আবাসন সংকটের মুখে আছি

টরন্টোর সিটি কর্মীরা তাদের নতুন প্রতিবেদনে যেসব সুপারিশ করেছেন ভাড়া নিয়ন্ত্রিত আবাসনের সম্প্রসারণ তার মধ্যে অন্যতম। তারা বলেছেন, ২০৩০ সালের মধ্যে নগরীতে ৬৫ হাজার সাশ্রয়ী বাড়ি নির্মাণের পরিকল্পনা করার আহ্বান জানিয়েছেন।

টরন্টোর আবাসন ব্যবস্থার রুপান্তরে জরুরিভিত্তিতে আরও সাশ্রয়ী বাড়ি নির্মাণের লক্ষে প্রতিবেদনে মোট ২২টি সুপারিশ করেছেন সিটি কর্মীরা। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সিটি কর্তৃপক্ষ বলেছে, আবাসন ব্যবস্থায় কয়েক দশক ধরে সরকারের বিনিয়োগ অপ্রতুল। এ অবস্থায় প্রতিবেদনে যে পদক্ষেপের রূপরেখা উল্লেখ করা হয়েছে বাড়ির ক্রয়ক্ষমতা ফিরিয়ে আনার জন্য জরুরি।

- Advertisement -

প্রতিবেদনে যেসব সুপারিশ করা হয়েছে তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে সিটির বিভিন্ন বিভাগ, সংস্থা ও কর্পোরেশনের মধ্যে সমন্বয়। সেই সঙ্গে সিটি নেতৃত্বাধীন উন্নয়নে মডেলের মাধ্যমে বাড়ির প্রত্যক্ষ জোগানে সিটি কর্তৃপক্ষের আরও বেশি ভূমিকা পালন।

প্রতিবেদনে বহুমুখী ভাড়াভিত্তিক ও অলাভজনক বাড়ি নির্মাণে ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। এর আসল উদ্দেশ্য হচ্ছে পাবলিক ও অলাভজনক বাড়ি বৃদ্ধি করা। যে পাঁচটি স্থানে সিটি কর্তৃপক্ষ বাড়ি নির্মাণ শুরু করতে পারে তাও চিহ্নিত করা হয়েছে প্রতিবেদনে। এগুলো হলো ৪০৫ শেরবোর্ন স্ট্রিট, ১৫০ কুইন্স ওয়ার্ফ রোড, ১১১৩-১১১৭ ডানডাস স্ট্রিট ওয়েস্ট, ১১ ব্রক এভিনিউ এবং ২৫ বেলভিউ এভিনিউ।

এক টেকনিক্যাল ব্রিফিং শেষে টরন্টোর মেয়র অলিভিয়া চাউ বলেন, আমরা ভয়াবহ আবাসন সংকটের মুখে আছি। ভালো একটি সাশ্রয়ী বাড়ি খুঁজে পাওয়া টরন্টোবাসীদের জন্য সত্যিই কঠিন। সরকারের সামনে সময় এসেছে বাড়ি নির্মাণের কাজে ফিরে যাওয়া। আমরা এটা আগেও করেছি। এখনো করতে পারি। সিটি অব টরন্টো বাড়ি নির্মাণে তৈরি।

প্রতিবেদনে বেশ কিছু উপায়ের মাধ্যমে এ কাজে ফেডারেল ও প্রাদেশিক সরকারকে সহায়তা দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। ২০১৮ সালের নভেম্বরের পরে নির্মিত বাড়ি ভাড়া নিয়ন্ত্রণ সম্প্রসারণে অন্টারিওর প্রতি আহ্বান জানানো এর মধ্যে অন্যতম। পাশাপাশি নতুন বহুমুখী সাশ্রয়ী ভাড়াভিত্তিক বাড়ি নির্মাণে জমি বন্দোবস্ত দেওয়া, আগামী সাতহ বছর টরন্টোকে বছরে ৫০ থেকে ৮০ কোটি ডলার অনুদান দেওয়া, আগামী সাত বছরে ৬৫০ কোটি ডলার কম সুদের অর্থায়ন ও ৮০০ কোটি ডলার পরিশোধযোগ্য ঋণ এবং এখনই বহুমুখী ভাড়াভিত্তিক সব বাড়ির ওপর থেকে পিএসটি তুলে নেওয়ার আহ্বানও জানানো হয়েছে প্রতিবেদনে।

আগের হাউজিংটু প্ল্যানে ২০৩০ সালের মধ্যে ৪০ হাজার সাশ্রয়ী ভাড়াভিত্তিক বাড়ির অনুমোদনের যে লক্ষ্যের কথা বলা হয়েছে নতুন পরিকল্পনায় তা বাড়িয়ে ৬৫ হাজার করা হয়েছে। এর মধ্যে আছে ন্যুনতম ৪১ হাজার সাশ্রয়ী বাড়া বাড়ি, সাড়ে ৬ হাজার রেন্ট-গিয়ারড-টু ইনকাম হোম এবং সাড়ে ১৭ হাজার ভাড়া নিয়ন্ত্রিত মার্কেট হোম।

সিটিকর্মীদের হিসাব অনুযায়ী, এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে আগামী সাত বছরে খরচ হবে ২ হাজার ৮৬০ কোটি থেকে ৩ হাজার ১৫০ কোটি ডলার।

This article was written by Rezaul Haque as part of the LJI

- Advertisement -

Read More

Recent