খালি বাড়ির ওপর কর আরোপ কার্যকর হচ্ছে

খালি বাড়ির ওপর কর আরোপ কার্যকর হচ্ছে
বাড়ি খালি আছে কিনা সে ঘোষণা দিতে বাড়ির মালিকদের ২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সময় দেওয়া হয়েছে

টরন্টোর যেসব বাসিন্দার বাড়ি ছয় মাসের বেশি সময় ধরে খালি পড়ে আছে তাদেরকে কর পরিশোধ করতে হবে। তবে ক্রয়ক্ষমতার সংকটে থাকা নগরীর বাড়ির সরবরাহ বৃদ্ধিতে এটা কতটা কাজে আসে সেটা এখনো দেখার বিষয়।

বাড়ি খালি আছে কিনা সে ঘোষণা দিতে বাড়ির মালিকদের ২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সময় দেওয়া হয়েছে।
কোনো মালিকের বাড়ি খালি পড়ে থাকলে অথবা ঘোষণা দিতে ব্যর্থ হলে বাড়ির মূল্যমানের এক শতাংশ হারে কর পরিশোধ করতে হবে। বসন্ত থেকেই এটি কার্যকর হবে।

এই পদক্ষেপ সমর্থনকারীরা বলছেন, নতুন কর পদ্ধতির কারণে অনেকেই অব্যবহৃত বাড়ি বিক্রির জন্য তালিকাবদ্ধ করতে উৎসাহিত হবেন অথবা তা ভাড়া বাজারে স্থানান্তরিত করবেন। এই পদ্ধতিতে বাড়ির সরবরাহ পদ্ধতি শক্তিশালী হবে।

কিন্তু বিরোধীরা বলছেন, করের বিষয়টি নিয়ে অস্পষ্টতা রয়েছে এবং বাড়ির সরবরাহ বৃদ্ধিতে শেষ পর্যন্ত এটি তেমন একটা কাজে আসবে না।

সিটি কাউন্সিল এই কর প্রথম অনুমোদন করে ২০২১ সালে। কিন্তু এটি বাস্তবায়নের জন্য দুই বছর সময় নেয়। একবার এটি কার্যকর হয়ে গেলে যেসব আবাসিক ভবন পূর্ববর্তী করবর্ষে ছয় মাসের বেশি সময় ধরে খালি পড়ে ছিল সেগুলোর ওপর তা প্রযোজ্য হবে। তবে এক্ষেত্রেও একাধিক অব্যাহতির সুযোগ রাখা হয়েছে। যেমন ছয় মাস আগে মূল মালিক মারা গিয়ে থাকলে বা হাসপাতালে অথবা লং-টার্ম কেয়ার হোমে ভর্তি থাকলে সেক্ষেত্রে এ কর প্রযোজ্য হবে না। মেরামত ও রেনোভেশন কাজ চললেও এ থেকে অব্যাহতি মিলবে।

এ ব্যাপারে সব বাড়িমালিকই এরই মধ্যে মেইলে নোটিশ পেয়ে গিয়ে থাকবেন এবং ২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে অনলাইন পোর্টালের মাধ্যমে বা চিঠির মাধ্যমে ঘোষণাপত্র জমা দিতে হবে। এরপর সিটি কর্তৃপক্ষ মার্চ অথবা এপ্রিলে আনুষ্ঠানিক ট্যাক্স নোটিশ ইস্যু করবে। ২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে যেসব বাড়িমালিক ফরমটি পূরণে ব্যর্থ হবেন, তারা বিলম্বে ঘোষণা দেওয়ার সুযোগ পাবেন। তবে সেক্ষেত্রে কমপক্ষে ২৫০ ডলার জরিমানা পরিশোধ করতে হবে।

সিটি কর্মীদের হিসাব অনুযায়ী, এই কর থেকে বছরে ৫ কোটি ৫০ লাখ থেকে ৬ কোটি ৬০ লাখ ডলার পর্যন্ত রাজস্ব আহরিত হবে। এই অর্থ পরে সাশ্রয়ী আবাসনের যে উদ্যোগ সেখানে ব্যবহার করা হবে। তবে টরন্টো রিজিয়নাল রিয়েল এস্টেট বোর্ডের (টিআরআরইবি) প্রধান বাজার বিশ্লেষক জেসন মার্সার বলেন, এই করেরে সাফল্য নিহিত কতজন বাড়ি মালিককে তাদের অব্যহৃত বাড়ি ভাড়া দিতে বা বিক্রি করতে উৎসাহিত করা যাচ্ছে তার মধ্যে।

নগরীতে কত সংখ্যক বাড়ি খালি আছে সে ব্যাপারে কেউই নিশ্চিত নয়। ২০১৭ সালের এক স্টাফ রিপোর্টের তথ্য অনুযায়ী, টরন্টোতে ১৫ হাজার থেকে ২৮ হাজার খালি আবাসন ইউনিট রয়েছে।

This article was written by Rezaul Haque as part of the LJI

- Advertisement -

Read More

Recent